বর্ণাঢ্য আয়োজনে কৃতী সংবর্ধনা

গত ২ ডিসেম্বর ২০১৪ ছিল আনন্দ-মুখর ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ অঙ্গন। অন্যান্য বারের মত এদিন ২০১৪ সালে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ৩২৯ জন কৃতী শিক্ষার্থীকে দেয়া হয় সংবর্ধনা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের মাননীয় ডেপুটি স্পীকার এডভোকেট মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, “ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ শিক্ষাক্ষেত্রে এক মাইলফলক। আমি খুবই আশাবাদী হলাম জেনে যে এই কলেজে কম সংখ্যক জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী ভর্তি হয় আর বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়ে বের হয়”।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ্। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা  ইসমত কাদীর গামা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য আলহাজ্ব মোঃ ওয়ালী উল্লাহ এফসিএ, জনাব মাজহারুল  ইসলাম, জনাব এস এম মিজানুর রহমান, শ্রী স্বদেশ রঞ্জন সাহা, এফসিএ। অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কলেজের শিক্ষার্থীদের রেজাল্টের মান বৃদ্ধি পাওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।

1
DIC_11

বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

“মানসম্পন্ন লেখাপড়ার পাশাপাশি ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ ছাত্র-ছাত্রীদের দৈহিক ও মানসিক বিকাশে গুরুত্ব আরোপ করায় আমি আনন্দিত।” গত ৫ ফেব্রুয়ারির, বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় যুব ও ক্রীড়া  উপমন্ত্রী জনাব আরিফ খান জয় এম.পি একথা বলেন।

কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমত কাদীর গামা মহোদয়ের সভাপতিত্বে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ঢাকা-১১ আসনের মাননীয় এমপি এ.কে.এম রহমতুল্লাহ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ্। উল্লেখ্য, ২১টি ইভেন্টে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রিন্সিপাল্স এ্যাওয়ার্ড

“আমরা চাই প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে এই এ্যাওয়ার্ডটি দিতে, আগামী সেমিস্টারে মেধার প্রতিযোগিতায় তোমরা সবাই এগিয়ে যাবে সমানতালে।” প্রিন্সিপালস এ্যাওয়ার্ড দিতে গিয়ে কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ্ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন। কলেজের প্রথা অনুযায়ী উইন্টার সেমিস্টার পরীক্ষায় ফলাফলের ভিত্তিতে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক শাখার প্রত্যেক বিভাগের ৫ জন করে প্রথম ১৫ জনকে প্রিন্সিপালস এ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। এসব মেধাবী শিক্ষার্থীদেরকে অন্যান্য শিক্ষকরাও ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিভিন্ন প্রকার উৎসাহ উপহার প্রদান করেন।

DIC_9238

সরস্বতী পূজা

বরাবরের মত এবারও ঢাকা ইমপিরিযাল কলেজ ক্যাম্পাসে পালিত হলো হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা। সকালে পূজা অর্চনা করে বিদ্যাদেবী সরস্বতীর কাছে বিদ্যাঅর্জনে সাহায্য চেয়ে প্রার্থনা করা হয়। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সবশেষে ছিল ছাত্র-ছাত্রী ও  আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য মধ্যাহ্ন ভোজের আয়োজন।

অভিভাবক দিবস

ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো, শিক্ষার্থীর মেধার সর্বোচ্চ বিকাশে সচেষ্ট থাকা। এ উদ্দেশ্যে ভর্তির পরপরই ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের সাথে প্রথম সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে অভিভাকদের অবহিত করেন এবং গাইড শিক্ষকসহ সকল শিক্ষককে অভিভাবকদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।

আনন্দমূখর নবীনবরণ

“স্বল্প সময়ে ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ অনেক খ্যাতি অর্জন করেছে। শিক্ষার্থীদের আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে এই কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের নিরন্তর চেষ্টায় এ কলেজ সাফল্যের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে দেখে আমার ভালো লাগছে।” ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনীয়ার মোশাররফ হোসেন এম.পি. একথা বলেন। কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমত কাদীর গামা মহোদয় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজউক-এর মাননীয় চেয়ারম্যান জি.এম. জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া। এছাড়া ১৪১০ জন নবাগত ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কলেজ গভর্নিং বডির সদস্যগণ অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাজউক-এর চেয়ারম্যান ডিজিটাল বাংলাদেশের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার জন্য সকল শিক্ষার্থীকে আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ সাংস্কৃতিক ক্লাব নন্দন কাননের সদস্যদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

Theater Club
DIC_10

২০১৫ সালের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা

“তোমরা সবাই সুস্থ শরীরে আত্মবিশ্বাসের সাথে পরীক্ষা দিয়ে ভাল রেজাল্ট করে নিজের, কলেজের এবং জাতির মুখ উজ্জ্বল করবে” ২০১৫ সালের এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্য শিক্ষকরাও শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে পরীক্ষার্থীদের ভাল ফলাফলের জন্য কোরআন খানি, মিলাদ মাহফিল ও দোয়া করা হয় এবং দ্বিতীয় পর্বে বিদায় সংবর্ধনা দেয়া হয়।

রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

প্রতিবছরই ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ অন্যদিন-এর সহযোগিতায় জাতীয় ভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এবারও তারই ধারাবাহিকতায় গত ৪ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় ৬ষ্ঠ জাতীয় স্কুলভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। ৪০০টি রচনার মধ্যে ২৪টি রচনা পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হয়। সমগ্র বাংলাদেশের ৪০০ শিক্ষার্থী ক গ্রুপ (পঞ্চম-অষ্টম শ্রেণি), খ গ্রুপ (নবম-দশম শ্রেণি) এবং গ গ্রুপ (এসএসসি পরীক্ষার্থী) এই তিনটি বিভাগে যথাক্রমে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, ২০২১ সালের বাংলাদেশ এবং দেশকে আমি কী দিতে পারি – এই তিনটি বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ক, খ ও গ গ্রুপ থেকে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারীদের অন্যদিন-এর সৌজন্যে ১০,০০০.০০ টাকা ৯,০০০.০০ টাকা এবং

৭,০০০.০০ টাকা মূল্য মানের বই উপহার দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি । প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, “ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ শিক্ষায় যেমন অগ্রগামী সংস্কৃতিতেও তেমন অগ্রগামী, তার প্রমাণ হলো এই রচনা প্রতিযোগিতা। এই প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে সারা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা উজ্জীবিত হবে এবং দেশাত্মবোধ সৃষ্টি হবে।” অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ঢাকা-১১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব এ.কে.এম রহমতুল্লাহ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাই টিভির বার্তা সম্পাদক মাহমুদ আল ফয়সাল এবং কলেজ গভর্নিং বডির সদস্যবৃন্দ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ্। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব ইসমত কাদীর গামা।

আলোচনা ও প্রুস্কার বিতরণ শেষে কলেজের সাংস্কৃতিক ক্লাব নন্দনকাননের শিক্ষার্থীরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।

DIC_6
DIC_5034 (1)

স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

‘আমাদের স্বাধীনতা আমাদের অহংকার।’ এই স্লোগান নিয়ে গত ২৭ মার্চ  ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ  ক্যাম্পাসে উদযাপিত হলো  মহান  স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস -২০১৫। কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ ওয়ালি উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাজিমুল হক হক্কানীসহ কলেজের অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ।  অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) তাঁর বক্তব্যে স্বাধীনতা যুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও সমাজের কাজে অবদান রাখার জন্য সবাইকে আহবান জানান।

ঢাকার বাইরের অনেক শিক্ষার্থীরই স্বপ্ন থাকে ঢাকার ভালো  কোনো কলেজে অধ্যয়ন করার। শিক্ষার্থীদের এ স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ ক্যাম্পাসের সন্নিকটেই কলেজের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায়  শিক্ষার্থীদের আবাসিক সুবিধার জন্য হোস্টেলের ব্যবস্থা করেছে।

ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকগণের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমকে সহজ করার জন্য কলেজটি ডিজিটাল পদ্ধতিতে যোগাযোগের ব্যবস্থা করেছে। ছাত্র-ছাত্রীদের অনুপস্থিতি, আকস্মিক ছুটি এবং বিভিন্ন নোটিশ অভিভাবকগণকে ঝগঝ-এর মাধ্যমে তৎক্ষণাৎ জানিয়ে দেয়া হয়। এতে অভিভাবকগণ সহজেই প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারেন। ঊফঁ ঝসধৎঃ নামে একটি ওঞ প্রতিষ্ঠান এ কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

অভিভাবকদের সাথে মতবিনিময় সভা

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় উইন্টার সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে অভিভাবকদের সাথে গাইড শিক্ষকদের মত বিনিময় সভা। সভার সভাপতিত্ব করেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

পিঠা উৎসব

বাঙালির অন্যতম ঐতিহ্যপূর্ণ শৌখিন খাবার পিঠাপুলি। তাই বিগত বছরগুলোর মত এবারও পালিত হয়েছে পিঠা উৎসব। পুলি, পাটিসাপটা, ভাপাপিঠা, দুধচিতল, নকশিপিঠাসহ মোট ১৭ ধরনের পিঠা এই উৎসবে পাওয়া যায়।

DIC_8104

অফিস-ট্যুর

সাচিবিক বিদ্যা বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার একটি অংশ শিল্প ও অফিস পরিদর্শন। এ বিভাগের ২য় বর্ষের ৪৬৫ জন ছাত্র-ছাত্রী এবং ১৫ জন শিক্ষক-কর্মচারী বাংলাদেশের খ্যাতনামা শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রাণ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক এবং ইঈঝওজ-এর সচিবালয় পরিদর্শন করে। এই পরিদর্শন কার্যক্রমের ফলে শিক্ষার্থীরা অফিস কার্যক্রম ও সাচিবিক বিষয়ে প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা লাভ করে।

উচ্ছল ঈদ-পুনর্মিলনী

প্রতি বছরের মতো এবারেও কলেজ ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হলো সেকশন ভিত্তিক ঈদ-পুনর্মিলনী। এদিনে প্রতিটি সেকশনে ছাত্র-ছাত্রীরা মনের মত করে ক্লাসরুম সাজিয়ে কেক কাটা, গান গাওয়া, আবৃত্তি করা, নৃত্যসহ বিভিন্ন মজার বিষয় পরিবেশন করে এবং ঈদ-উৎসবে মেতে ওঠে।

DIC_8
Theater Club

নবীন শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন

২০১৪-১৫ সেশনের নবীন শিক্ষার্থীদেরকে কলেজের নিয়ম-শৃঙ্খলা, ক্লাস-কার্যক্রম, পরীক্ষা পদ্ধতি কলেজে অধ্যয়নকালে তাদের করণীয় ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে অবহিত করার জন্য কলেজ পরিচিতিমূলক অনুষ্ঠান ‘ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম’ অনুষ্ঠিত হয়।

রক্তদান কর্মসূচি

এক ব্যাগ রক্ত একজন মুমূর্ষু ব্যক্তিকে ফিরিয়ে দিতে পারে সতেজ প্রাণ। তাই ইমপিরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা লায়ন্স ক্লাব অব ইমপিরিয়ালের আহবানে ২৫০ ব্যাগ রক্তদান করে। প্রত্যেক রক্তদানকারীকে ১টি করে ডোনার কার্ড দেয়া হয়, যে কার্ডটি দিয়ে প্রয়োজনের সময় রক্ত পাওয়া সহজ হবে।

blood donation

শীতবস্ত্র বিতরণ

ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ বিভিন্ন দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি যতটা সম্ভব সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। শিক্ষার্থীদেরকেও আর্ত মানবতার সেবায় উৎসাহিত করে। এ বছরেও শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা নিয়ে কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ ওয়ালি উল্লাহ আফতাব নগর ও আশপাশের এলাকার প্রায় ৪০০ জন অসহায় শীতার্ত মানুষকে কম্বল ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে মাইটিভির বার্তা প্রধান জনাব মাহমুদ আল ফয়সাল উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণে অংশগ্রহণ করে।

ক্লাব কার্যক্রম উদ্বোধন

“মেধার বিকাশ ঘটিয়ে ভালো রেজাল্ট করা যায় আর মননের বিকাশ ঘটিয়ে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠা যায়। আর তাই ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ শিক্ষার্থীদের মেধার বিকাশের সাথে সাথে মননের বিকাশে ও সমান তৎপর”- নবীন শিক্ষার্থীদের জন্য ক্লাব কার্যক্রম উদ্বোধন কালে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ একথা বলেন। উল্লেখ্য, বিভিন্নক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের মুক্ত প্রতিভা বিকাশের জন্য বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা, স্পোকেন ইংলিশ, সাধারণ জ্ঞান, আই আইটি, অভিনয়, সঙ্গীত, নৃত্য, রোভার স্কাউট ইত্যাদি বিষয়ে মোট ১৮টি ক্লাব রয়েছে। প্রত্যেক শিক্ষার্থীই পছন্দ অনুযায়ী ক্লাবের সদস্য হয়ে এসব বিষয়ে চর্চা করতে পারে।

DSC_102

বার্ষিক বনভোজন

দেশের প্রতিকূল রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে বিলম্বে হলেও গত ১৬ মার্চ, ২০১৫ আফতাব নগরের বিশাল প্রান্তরে অনুষ্ঠিত হয় বার্ষিক বনভোজন ও বসন্ত বরণ উৎসব। সম্পূর্ণ গ্রামীণ মেলার আদলে সাজানো এ অনুষ্ঠান ছাত্র-ছাত্রী ও উপস্থিত সবার মধ্যে ব্যাপক আনন্দ উৎসব সৃষ্টি করে। দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানে ঘুড়ি ওড়ানো, সাপখেলা, বানর খেলা, গম্ভীরা, বাউল গান এবং শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মাতিয়ে রেখেছিল উপস্থিত সকলকে। একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে এ অনুষ্ঠানে কলেজের সকল শিক্ষক, কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জনাব মোঃ ওয়ালি উল্লাহ, কলেজ পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা জনাব ইসমত কাদীর গামা এবং পরিচালনা পরিষদের সদস্য জনাব মাসুম রহমান অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

সুন্দরবন ভ্রমণ

অন্যান্য বছরের মত ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ ট্যুর ক্লাব প্রায় ৩০০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ঘুরে এলো সুন্দরবন। কটকা, করমজল, দুবলার চর, জামতলী বিচসহ বেশ কয়েকটি স্পটে নেমে সুন্দরবনের বিভিন্ন বৈচিত্র্য উপভোগ করে ভ্রমণ অভিযাত্রীরা। ফানুস ওড়ানো, ক্যাম্প ফায়ারিং, বারবি কিউ এবং বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ভ্রমণের প্রতিটি মুহূর্তকে করে তোলে আনন্দমুখর। ভ্রমণ শেষে অধ্যক্ষ মহোদয় সফল ট্যুর করে আসতে পারার জন্য আহ্বায়কসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানান এবং স্রষ্টার নিকট শুকরিয়া আদায় করেন।

tour

বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমি আয়োজিত বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড ২০১৪ ঢাকার ৫টি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে অত্র এলাকার শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ ক্যাম্পাসে। উক্ত প্রতিযোগিতায় ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮৫০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতার বিশেষ আকর্ষণ ছিল ইমপিরিয়াল সায়েন্স ওয়ার্ল্ডের সৌজন্যে ‘একটুখানি বিজ্ঞান’। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুর রশিদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক সমকালের সুহৃদ সমাবেশের বিভাগীয় সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ।

science fair